Skin Problems: গ্রীষ্ম-বর্ষাকালে দাদ, খোসপাঁচড়া এবং চুলকানি প্রতিরোধের এই ৫টি কার্যকর উপায়

0

গ্রীষ্ম শেষ হতে চলেছে এবং বৃষ্টি বৃষ্টির জন্য প্রস্তুত। এভাবে দুই ঋতুর মিলনমেলায় নানা সমস্যাও দেখা দেয়। সাধারণ স্তর ছাড়াও, এই অসুবিধাগুলি স্বাস্থ্যের স্তরেও আবির্ভূত হয়। এর মধ্যে রয়েছে ত্বকের সমস্যাও। দাদ, চুলকানি, চুলকানি, ফুসকুড়ির মতো অনেক সমস্যা এই মৌসুমে দেখা দিতে পারে।

Skin Problems: গ্রীষ্ম-বর্ষাকালে দাদ, খোসপাঁচড়া এবং চুলকানি প্রতিরোধের এই ৫টি কার্যকর উপায়

অনেক সময় ঋতু পরিবর্তনের কারণে শরীরের তাপমাত্রার পরিবর্তন, বাতাসে আর্দ্রতা বৃদ্ধি, অতিরিক্ত ঘাম, পরিচ্ছন্নতার যত্ন না নেওয়া, যেকোনো ধরনের অ্যালার্জির সংস্পর্শে আসা, কোনো রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসা ইত্যাদি কারণে ত্বক সংক্রান্ত সমস্যা দেখা দেয়। এমন পরিস্থিতিতে কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করলে উপকার পাওয়া যায়। বিশেষ করে সমস্যার শুরুতে। ত্বকের উপর আবহাওয়ার প্রভাব নিয়ন্ত্রণ করতে, কিছু খুব সহজ ব্যবস্থা কার্যকর হতে পারে। তাদের সম্পর্কে জানুন।

সাবান বা রাসায়নিক ব্যবহার

চর্মরোগ প্রায়ই চুলকানি, জ্বালাপোড়া ইত্যাদি উপসর্গ দিয়ে শুরু হয়। এটি শুরু হওয়ার সাথে সাথেই, প্রথমে সাবান, পারফিউম, ডিওডোরেন্ট, বডি ওয়াশের মতো প্রতিটি রাসায়নিক মাধ্যম ব্যবহার বন্ধ করুন। রাসায়নিক এলার্জি বা সংক্রমণ ট্রিগার করতে পারে।

ধাতু, গহনা ইত্যাদি ব্যবহার বন্ধ করুন

অনেক সময় ঘাম ও ধাতুর সাথে গলায় পরা চেইন, গলার হার বা হাতে পরা চুড়ি ত্বকের সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। বিশেষ করে কৃত্রিম গহনার কারণে এটি ঘটতে পারে। তাই ত্বকে সামান্য সমস্যা দেখা দিলেই সেগুলো খুলে ফেলুন।

(ads1)

সঠিক পোশাক ব্যবহার করুন

শুধুমাত্র সুতির কাপড় ব্যবহার করুন যা ঘাম শোষণ করে এবং ত্বকে বাতাস পৌঁছাতে দেয়। সিন্থেটিক কাপড় বা জরি-জরিযুক্ত পোশাক ত্বকে ঘষে বা ঘাম জমে অস্বস্তি বাড়াতে পারে। তাই এসব পোশাক এড়িয়ে চলুন। এছাড়াও ঢিলেঢালা পোশাক পরুন।

আপনার কাপড় এবং জিনিসপত্র আলাদা রাখুন

যতক্ষণ আপনি চর্মরোগের চিকিৎসা নিচ্ছেন, ততক্ষণ আপনি যা ব্যবহার করেন সব আলাদা রাখুন এবং তোয়ালে-ন্যাপকিন, অন্তর্বাসের মতো জিনিসগুলি আলাদাভাবে ধুয়ে নিন। বিশেষ করে যদি আপনার বাড়িতে ছোট শিশু বা বয়স্ক মানুষ থাকে, তাদের সাথে যতটা সম্ভব সরাসরি যোগাযোগ এড়ানোর চেষ্টা করুন। আপনি সংক্রমণের সময় অন্য লোকেদের সাথে সরাসরি সংস্পর্শে এসে বা সুস্থ মানুষের দ্বারা ব্যবহৃত জিনিস ব্যবহার করেও তাদের সংক্রামিত করতে পারেন।

চুলকানি প্রতিরোধের কার্যকর উপায়

চুলকানি প্রতিরোধের কার্যকর উপায়

এই প্রতিকার কঠিন হতে পারে, বিশেষ করে যদি না চিকিত্সা পাওয়া যায়। কিন্তু সংক্রামিত এলাকায় চুলকানি না করে, আপনি সংক্রমণ বা অ্যালার্জির লক্ষণগুলিকে অগ্রগতি থেকে রোধ করতে পারেন। তাই চুলকানি না করার চেষ্টা করুন। নখের মধ্যে উপস্থিত ময়লা এবং ময়লা একত্রিত হয়ে এই ধরনের সমস্যা আরও গুরুতর রূপ নিতে পারে।

নারকেল তেল, কর্পূর, নিমের তেল ইত্যাদি সাধারণ অ্যালার্জি বা অন্যান্য কারণে ত্বকের ফুসকুড়ি, লালভাব, চুলকানি ইত্যাদিতে উপশম দিতে পারে, তবে একবার প্রয়োগ করলে বা স্বাভাবিক ব্যবস্থার সাথে লক্ষণগুলি হ্রাস না হলে অবিলম্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। ডাক্তার আপনাকে ওষুধ, লোশন ইত্যাদির সাথে উপরোক্ত সতর্কতাগুলি মাথায় রাখার পরামর্শ দেবেন। আপনি যদি আগে থেকে তাদের যত্ন নেন, তাহলে আপনি দ্রুত সমস্যা নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হবেন।

Tags

Post a Comment

0 Comments
Post a Comment (0)

#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !
To Top