Cold Water Effects: রোদ থেকে এসে ফ্রিজের ঠাণ্ডা জল পান করেন ? তাহলে আপনার এই সমস্যা হবে

0

গ্রীষ্মকালে উচ্চ তাপমাত্রায় ঠাণ্ডা জল পান করলে তাপ থেকে স্বস্তি পাওয়া যায়। গ্রীষ্মে হাইড্রেটেড থাকার জন্য, লোকেরা তরল পানীয় গ্রহণ করে, যার মধ্যে সাধারণ জলের পাশাপাশি লোকেরা লস্যি, জুস এবং নারকেল জল সহ বিভিন্ন পানীয় গ্রহণ করে। বিশেষজ্ঞদের মতে, হাইড্রেটেড থাকতে অন্তত আট থেকে ১০ গ্লাস পানি জল করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু জল পান করার সময় সঠিক তাপমাত্রা থাকাটাও জরুরি। জলের তাপমাত্রা স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলে। গ্রীষ্মকালে মানুষ ঠান্ডা জল পান করার ইচ্ছায় ফ্রিজের জল পান করে। 

ঠান্ডা জল পানের অসুবিধা

তৃষ্ণা মেটাতে এবং ক্লান্তি দূর করার জন্য মানুষ যে কোনো সময় ঠাণ্ডা জল পান করে, যদিও তা গরম থেকে কিছু সময়ের জন্য স্বস্তি দেয়, কিন্তু তা অনেক ক্ষতিও করে। আয়ুর্বেদে ঠান্ডা জলকে স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর বলা হয়েছে। বিশেষ করে ফ্রিজের ঠাণ্ডা জল একেবারেই পান করা উচিত নয়। রোদ থেকে আসা, ব্যায়ামের পর বা খাওয়ার পর ঠান্ডা জল পান করলে শরীরে খারাপ প্রভাব পড়ে। আপনিও যদি গ্রীষ্মে ভুল সময়ে এবং ভুল উপায়ে ঠান্ডা জল পান করেন, তাহলে জেনে নিন স্বাস্থ্যের জন্য কী কী ক্ষতি করে।

হজমের উপর প্রভাব

হজমের উপর প্রভাব

শরীর তার তাপমাত্রায় যে কোনও পদার্থ নিয়ে আসে, যা এটি আরও হজমের জন্য পাঠায়, তবে খুব কম তাপমাত্রার জিনিসগুলি খাওয়ার ফলে, শরীর তার তাপমাত্রা অনুযায়ী কাজ শুরু করে, যার ফলে হজম প্রক্রিয়া ধীর হয়ে যায় এবং বদহজমের সমস্যা হয়। পেটে ঠাণ্ডা জল পরিপাকতন্ত্রকে প্রভাবিত করে। গবেষণা অনুসারে, ঠান্ডা জল রক্তনালীগুলিকে সংকুচিত করে, যা হজমের সমস্যার দিকে পরিচালিত করে।

ওজন কমানোর সমস্যা

যারা ওজন কমাতে চান, তাদের ঠাণ্ডা জল খাওয়া উচিত নয়। ঠাণ্ডা জলের কারণে শরীরে উপস্থিত চর্বি পোড়ানো কঠিন হয়ে পড়ে। ফ্রিজের পানি শরীরের চর্বি শক্ত করে, যার কারণে মেদ কমাতে সমস্যা হয় এবং ওজনও কমে না।

গলা ব্যথা

গলা ব্যথা

প্রায়শই, প্রবীণরা বলে যে গলা ব্যথা বা কণ্ঠস্বর পরিবর্তন হলে তারা অবশ্যই ঠান্ডা জল পান করেছে। এটাও সত্য, ঠান্ডা পানি জল করলে গলা ব্যথা হয়। ফ্রিজে রেখে ঠাণ্ডা জল পান করার পর এমন সমস্যা হওয়াই স্বাভাবিক। অন্যদিকে খাবারের পর ঠান্ডা জল পান করলে শ্লেষ্মা তৈরি হতে শুরু করে এবং শ্বাসনালী বন্ধ হয়ে যায়। এতে গলা ব্যথা, শ্লেষ্মা, ঠাণ্ডা এবং গলা ফুলে যাওয়ার মতো সমস্যা হতে পারে।

হার্ট রেট উপর প্রভাব

হার্ট রেট উপর প্রভাব

ঠান্ডা জল খাওয়া আপনার শরীরের হৃদস্পন্দন কমাতে পারে। একটি সমীক্ষা অনুসারে, ফ্রিজের বেশি ঠান্ডা জল পান করা দশম ক্র্যানিয়াল নার্ভকে (ভ্যাগাস নার্ভ) উদ্দীপিত করে। স্নায়ু শরীরের অনৈচ্ছিক ক্রিয়াকলাপ নিয়ন্ত্রণের জন্য দায়ী। কম তাপমাত্রার জলের প্রভাব সরাসরি ভ্যাগাস স্নায়ুর উপর পড়ে, যা হৃদস্পন্দন হ্রাস করে।

মাথাব্যথা সমস্যা

মাথাব্যথা সমস্যা

রোদ থেকে আসার পরপরই খুব ঠান্ডা জল বা বরফের জল পান করলে ব্রেন ফ্রিজ হতে পারে। ঠান্ডা জল খাওয়া আপনার মেরুদণ্ডের অনেক স্নায়ুকে ঠান্ডা করতে পারে, যা মস্তিষ্ককে প্রভাবিত করে এবং মাথাব্যথার দিকে পরিচালিত করে। এই অবস্থা সাইনাসের সমস্যায় ভুগছেন এমন লোকেদের কষ্ট বাড়িয়ে দিতে পারে।

Tags

Post a Comment

0 Comments
Post a Comment (0)

#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !
To Top